জাতিসংঘ ও বাংলাদেশ

তথ্য কণিকা

  • জাতিসংঘ বিশ্বব্যাপি শান্তি প্রতিষ্টার জন্য তৈরি হয়েছে
  • প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময়কাল হলো: ১৯১৪-১৯১৯
  • দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়কাল হলো: ১৯৩৯-১৯৪৫
  • “লীগ অব নেশনস” ১৯২০ সালের ১০ জানুয়ারি প্রতিষ্ঠিত হয়
  • জাতিসংঘ প্রতিষ্টা হয় ১৯৪৫ সালের ২৪ অক্টোবর
  • আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করা জাতিসংঘের মূল উদ্দেশ্য
  • বাংলাদেশ ১৯৭৪ সালে জাতিসংঘের সদস্যপদ লাভ করে
  • স্থায়ী সদস্য রাষ্ট্রগুলোর ভেটো ক্ষমতা রয়েছে। ভেটো হচ্ছে কোনো প্রস্তাব নাকচ করে দেওয়ার ক্ষমতা। অর্থাৎ কোনো প্রস্তাবে এদের কেউ দ্বিমত পোষণ করলে সে প্রস্তাব আর অনুমোদিত হয় না।
  • পাঁচটি প্রধান অঙ্গ ও একটি সেক্রেটারিয়েট নিয়ে জাতিসংঘ গঠিত।
  • জাতিসংঘের সকল সদস্যা রাষ্ট্র নিয়ে সাধারণ পরিষদ বা বিতর্ক সভা গঠিত।
  • নিরাপত্তা পরিষদ হচ্ছে জাতিসংঘের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ও কার্যকরী পরিষদ।
  • নিরাপত্তা পরিষদ ৫টি স্থায়ী সদস্যা ও ১০টি অস্থায়ী সদস্যা নিয়ে গঠিত।
  • ৫টি স্থায়ী সদস্যা হচ্ছে - যুক্তরাষ্ট, ব্রিটেন, ফ্রান্স, রাশিয়া ও চীন।
  • স্থায়ী সদস্যের ভেটো প্রদান করার ক্ষমতা আছে।
  • ভেটো প্রদান হচ্ছে কোনো প্রস্তাব নাকচ করে দেয়া।
  • নেদারল্যান্ডস এর হেগ শহরে জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক বিচারালয় অবস্থিত, যার কাজ হচ্ছে আন্তর্জাতিক বিবাদ মীমংসা।
  • সেক্রেরেটারীয়েট হচ্ছে জাতিসংঘের প্রশাসনিক বিভাগ।
  • আমেরিকার নিউয়ৰ্ক শহরে জাতিসংঘের সদর দপ্তর অবস্থিত।
  • বর্তমান বিশ্বের ১৯৩ টি দেশ জাতিসংঘের সদস্য।
  • বাংলাদেশ ১৯৭৪ সালে জাতিসংঘের ১৩৬ তম দেশ হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হয়।
  • বাংলাদেশে জাতিসংঘের সবক'টি অঙ্গ সংস্থার মিশন আছে।
  • ইউএনডিপি (UNDP) হচ্ছে জাতিসংঘ উননয়ন কর্মসূচি।
  • ইউনিসেফ হচ্ছে জাতিসংঘ শিশু তহবিল।
  • UNESCO হচ্ছে জাতিসংঘের শিক্ষা বিজ্ঞান ও সংস্কিতি সংস্থা।
  • FAO হচ্ছে খাদ্য ও কৃষি সংস্থা।
  • ডব্লিউএইচও (WHO) হচ্ছে বিশ্ব স্বাস্থ সংস্থা।
  • বিশ্বব্যাপী শান্তি প্রতিষ্ঠার মডেল হিসেবে এবং শান্তিপ্রিয় জাতি হিসেবে বাংলাদেশি সৈন্যরা তাদের অনন্য অবদানের জন্য সিয়েরা লিওনে পেয়েছেন স্থানীয় মানুষের ভালোবাসা, শ্রদ্ধা। এ ভালোবাসার পরিপ্রেক্ষিতে বাংলা ভাষা পেয়েছে সেই দেশের দ্বিতীয় রাষ্ট্রভাষার মর্যাদা।